ঢাকা রাইড শেয়ারিং ড্রাইভার'স ইউনিয়ন

প্রশিক্ষিত, সুশৃংখল, নেশামুক্ত রাইড-শেয়ারকারী ড্রাইভারদের সংগঠন

সংঘবদ্ধভাবে অন্যায় অবিচার এবং অধিকার আদায় সহ সকলে মিলে সকলের বিপদে-আপদে পাশে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার নিয়ে গঠিত একটি আদর্শ সংগঠন।
যার মূল প্রতিপাদ্য হলো –
সকলের তরে সকলে আমরা,
প্রত্যেকে মোরা পরের তরে।

প্রতিষ্ঠিত 
৩১ শে আগস্ট ২০১৯ ইং সালে

VIEW MORE

পৃথিবীর অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও রাইড সেবাদানকারী ড্রাইভারদের বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় যেমন, নিরাপত্তাহীনতা, বিভিন্ন প্রকার অন্যায় ও লাঞ্ছনার শিকার এবং রাইড সেবাপ্রদানকারী কোম্পানিগুলোর, ড্রাইভার ঠকানো নীতির শিকার। এমনকি গভীর রাতে রাইড শেয়ার করার একমাত্র হাতিয়ার অর্থাৎ তার যানবাহন টিতে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিলে তাকে একাই তা মোকাবেলা করতে হয়।
এই সকল সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সারাবিশ্বে রাইড সেবাপ্রদানকারী ড্রাইভাররা বিভিন্ন নামে বিভিন্ন ব্যানারে সঙ্গবদ্ধ হয়েছে । তারই অনুকরনে ঢাকা তথা সারা বাংলাদেশে গঠিত হয়েছে যে সংগঠনটি তার নাম “ঢাকা রাইড শেয়ারিং ড্রাইভার’স ইউনিয়ন”।
অলাভজনক এই সংগঠনটি আরো যে সকল মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে গঠিত তা হলো-
১/ নেশাকে নিরুৎসাহিত করে ড্রাইভার শ্রেণীর মর্যাদা বৃদ্ধি করা।
২/ যানজট নিরসনে সহযোগিতা করে ট্রাফিক আইন মেনে চলতে উৎসাহিত করা।
৩/ ড্রাইভার শ্রেণীর মধ্যে দেশাত্মবোধ তৈরি করে, দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখার কাজে উৎসাহিত করা।
৪/ব্যক্তি সমাজ এবং রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে মহৎ কাজের মধ্য দিয়ে নিজেদের নাগরিক অধিকার সম্পর্কে সচেতন করা সহ সুনাগরিক হতে উৎসাহিত করা।
৩১ শে আগস্ট ২০১৯ ইং সালে এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে এ-যাবৎ উল্লেখযোগ্য যে সকল ভালো কাজ সংগঠিত হয়েছে তা হলো-
১/ শতাধিক বার বিভিন্ন ড্রাইভারকে এক্সিডেন্ট সহ যানবাহনের বিভিন্ন রকম যান্ত্রিক ত্রুটিতে সঙ্গবদ্ধ হয়ে সহযোগিতা প্রদান করেছে এই সংগঠনের সদস্যরা -(সংগঠনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী)।
২/ অর্ধশতাধিক বার
বিভিন্ন মালিক এবং ড্রাইভারদের সংযোগ স্থাপন করিয়ে চাকুরী অথবা চুক্তি ভিত্তিক গাড়ি পাইয়ে দেওয়ার কাজে সহযোগিতা করা হয়েছে -সাংগঠনিকভাবে।
৩/ ৩০ এর অধিক দুস্থ ড্রাইভার ও তার পরিবারের প্রয়োজনে রক্ত দান করেছে সংগঠনের সদস্যরা-(সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী)।
৪/ সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী,
দশ এর অধিক বার
নিজেদের মধ্যে থেকে অর্থ সংগ্রহ করে অসুস্থ ড্রাইভার এবং তার পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসা করা হয়েছে।
৫/একজন দুস্থ ও বেকার
ড্রাইভারের মৃত সন্তানের দাফন ও স্ত্রীর চিকিৎসা করা হয়েছে এই সংগঠন থেকে -সাংগঠনিকভাবে।
৬/ মহামারী করোনার শুরুতেই করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে করণীয় বিষয়ক প্রচারণাসহ ২০০০ ও অধিক মানুষের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাক্স ও রুমাল সহ বিভিন্ন প্রকার সুরক্ষা সামগ্রী।
৭/ লকডাউনের মাঝামাঝি সময়ে ১ (এক) হাজারেরও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত বেকার দুস্থ ড্রাইভারদের পরিবারকে (বিভিন্ন মাধ্যম থেকে সংগ্রহ করে) চাল, ডাল, তেল, নুন, আটা, চিনি, আলু, পিয়াজ সহ বিভিন্ন রকম শিশু খাদ্য সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে কয়েকটি ধাপে- সাংগঠনিকভাবে।
৮/ ৫০ এর অধিক (বিভিন্ন মাধ্যম থেকে সংগ্রহ করে) লকডাউন কালীন সময়ে দুস্থ বেকার ড্রাইভার ও তার বৃদ্ধ বাবা-মা সহ পরিবার পরিজন এর মধ্যে বিনামূল্যে ঔষধ বিতরণ করা হয়েছে।
৯/ (নিজেদের মধ্য থেকে অর্থ সংগ্রহ করে) লকডাউন এর মাঝে আগত পবিত্র ঈদুল ফিতরের সময় পাঁচ শতাধিক ড্রাইভার পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে সেমাই-চিনি গুড়ো দুধ সহ ইত্যাদি খাদ্য সামগ্রী।
১০/ পাঁচ এর ও অধিক বার রাইড শেয়ারিং সেবায় নিয়োজিত ড্রাইভারদের বিভিন্ন রকম ন্যায় সঙ্গত দাবি নিয়ে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের মাধ্যমে কোম্পানী গুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।
যার সুফল আমরা পেয়েছি, পাচ্ছি এবং ভবিষ্যতে আরো পাবো বলে আশাবাদী।
১১/ঢাকা শহরে রাইড সেবাদান করতে গিয়ে যাত্রীর হাতে নির্মমভাবে খুন হওয়া ড্রাইভার আরমান ভাইয়ের পরিবারকে বিভিন্ন সময় আর্থিক সহযোগিতা সহ খাদ্য সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে।
এছাড়াও অসংখ্য কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে সাধারণ রাইড শেয়ার কারি ড্রাইভারদের কল্যাণে।
সবই সম্ভব হয়েছে সু-সংঘটিত হওয়ার ফলে।
এই পর্যন্ত এই সংগঠনের কোন পদধারী কোনরূপ ক্ষমতার অপব্যবহার করেনি কিংবা কোন অন্যায় বা রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড সংঘটিত হয়নি। এই সংগঠনটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক এবং ন্যায় প্রতিষ্ঠার একটি আদর্শ সংগঠন হওয়ায় ভবিষ্যৎও কোন রাষ্ট্র বিরোধী কর্মকান্ড সংঘটিত হবে না বলে আমরা অঙ্গিকার বদ্ধ।
পিছিয়ে পড়া ড্রাইভিং পেশার মানুষের জীবন-মান উন্নয়নে সর্বোপরি সংগঠিতভাবে কাজ করাই এই সংগঠনটির একমাত্র উদ্দেশ্য।
আমরা চাই সারা বাংলাদেশে সকল রাইড
শেয়ারকারী ড্রাইভাররা এই সংগঠনের সাথে মিলিত হয়ে বাংলাদেশ একটি সুন্দর রাইড শেয়ারিং সেবা প্রতিষ্ঠা করবে।
ধন্যবাদান্তে,
বেলাল আহমেদ
সাধারণ সম্পাদক
ঢাকা রাইড শেয়ারিং ড্রাইভার’স ইউনিয়ন।

Lear more…